মাত্র ৬৪ বছরেই দয়ালের ডাকে সাড়া দিয়ে চলে গেলেন এন্ড্রু কিশোর

0
78
মাত্র ৬৪ বছরেই অসীম পরাপারে চলে গেলেন বাংলা সিনেমার সোনালি কণ্ঠের অধিকারী এন্ড্রু কিশোর।

‘ডাক দিয়েছেন দয়াল আমারে’ এন্ড্রু কিশোরের জনপ্রিয় গানগুলোর মধ্যে অন্যতম। সেই দয়ালের ডাকে সাড়া দিয়ে অসীম পরপারে চলে গেলেন বাংলাদেশের সিনেমার প্লেব্যাক সম্রাট। যে ডাক উপেক্ষা করার জো কারো নেই। মাত্র ৬৪ বছর বয়সে বরেণ্য কন্ঠশিল্পী এন্ড্রু কিশোরের জীবনাবসান ঘটলেও রয়ে গেলো সুরে ভরা শিল্পীজীবন। তার গানের মধ্যেই বাংলার সঙ্গীত প্রেমিরা যুগে যুগে খুঁজে পাবেন এই কিংবদন্দি শিল্পীকে। মানুষের মণিকোঠায় তার বিচরণ কখনোই হবে না জীর্ণ।

১৯৫৫ সালে রাজশাহীতে জন্ম নেয়া এই কিংবদন্তী  ১৯৭৭ সালে আলম খানের সুরে ‘মেইল ট্রেন’ সিনেমার ‘অচিনপুরের রাজকুমারী নেই যে তার কেউ’ গানের মধ্য দিয়ে প্লেব্যাক শুরু করেন তিনি। এরপর একের পর এক অসংখ্য জনপ্রিয় গানে বাঙালিকে তার শেকড়ের সাথে পরিচিত করিয়েছেন হাজারবার। বাংলা চলচ্চিত্রের গানে অবদানের জন্য সবচেয়ে বেশি, আটবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন।

বিদায় নিয়েছেন জীবন যুদ্ধে ক্যান্সারের কাছে হার মেনে। বহুদিন লড়াই করেছেন এই দূরারোগ্য ব্যাধির সাথে। অবশেষে এই নশ্বর পৃথিবী ছেড়ে বহু দূরের পথে পাড়ি জমালেন প্রিয় এই শিল্পী। তবে তিনি থাকবেন। তার গানের মধ্য দিয়ে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মে।

তার জনপ্রিয় গানের মধ্যে রয়েছে- জীবনের গল্প আছে বাকি অল্প, হায়রে মানুষ রঙিন ফানুস, ডাক দিয়াছেন দয়াল আমারে, আমার সারা দেহ খেয়ো গো মাটি, আমার বুকের মধ্যে খানে, আমার বাবার মুখে প্রথম যেদিন শুনেছিলাম গান, ভেঙেছে পিঞ্জর মেলেছে ডানা, সবাইতো ভালোবাসা চায়, বেদের মেয়ে জোসনা আমায় কথা দিয়েছে, তুমি আমার জীবন আমি তোমার জীবন, ভালো আছি ভালো থেকো, তুমি মোর জীবনের ভাবনা, চোখ যে মনের কথা বলে, পড়েনা চোখের পলক, পদ্মপাতার পানি, ওগো বিদেশিনী, তুমি মোর জীবনের ভাবনা, আমি চিরকাল প্রেমের কাঙাল ইত্যাদি।

আপনার মন্তব্য জানান